শীতে ঝুঁকিতে ইউক্রেনের লক্ষ মানুষ: হু-এর সতর্কতা

আন্তর্জাতিক

বিদ্যুৎ সংকটের কারণে এবারের শীতে ইউক্রেনের লাখ লাখ মানুষ ঝুঁকির মুখে রয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির ইউরোপের আঞ্চলিক পরিচালক হানস হেনরি পি ক্লুগ বলেন, ইউক্রেনের অর্ধেকের বেশি বিদ্যুৎ কাঠামো হয় ক্ষতিগ্রস্ত, না হয় ধ্বংস হয়ে গেছে। ’

সম্প্রতি ইউক্রেনে এবারের শীতের প্রথম তুষারপাত হয়েছে। দেশের কিছু কিছু অঞ্চলে তাপমাত্রা মাইনাস ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে যাবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

ডব্লিউএইচও-এর হিসাব বলছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের শুরু থেকে এ পর্যন্ত স্বাস্থ্য সেবা কাঠামোতেও ৭০৩টি হামলার ঘটনা ঘটেছে।
গত সপ্তাহে রাশিয়া ইউক্রেনের আরো বিদ্যুৎ উৎপাদন স্থাপনা এবং বেসামরিক ভবনে গোলাবর্ষণ করেছে। পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যর্থতার কারণে এ কৌশল বেছে নিয়েছে দেশটি।

ইউক্রেনের এক কোটিরও বেশি মানুষ বর্তমানে বিদ্যুৎ সরবরাহ ছাড়া বাস করছেন। বিদ্যুৎকেন্দ্রে অব্যাহত রুশ হামলার প্রভাব শীতে প্রকট হবে বলে অভিমত বিশেষজ্ঞদের।

ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে এক সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও-র ইউরোপের আঞ্চলিক পরিচালক হানস হেনরি পি ক্লুগ বলেন, ‘সোজা সাপ্টা ভাষায়, এই শীত হবে বেঁচে থাকার লড়াই। ইউক্রেনের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এ পর্যন্ত যুদ্ধের সবচেয়ে অন্ধকার দিনগুলোর মুখোমুখি হয়েছে। ’

ডব্লিউএইচও-র এই কর্মকর্তা আরো জানান, রুশ হামলার কারণে শত শত হাসপাতাল এবং স্বাস্থ্যসেবা স্থাপনা পুরোপুরি মাত্রায় কাজ করতে পারছে না। মৌলিক প্রয়োজন মেটানোর মতো তেল, বিদ্যুৎ এবং পানির অভাব দেখা দিয়েছে।

পি ক্লুগ বলেন, ‘প্রসূতি ওয়ার্ডে ইনকিউবেটর প্রয়োজন, ব্লাড ব্যাংকে রেফ্রিজারেটর প্রয়োজন এবং নিবিড় পরিচর্যায় ভেন্টিলেটর দরকার। এগুলোর জন্য প্রয়োজন বিদ্যুৎ। ’

ক্লুগ দোনেৎস্কের ১৭ হাজার এইচআইভি রোগীর জন্যও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, তাদের বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল ওষুধ দ্রুতই ফুরিয়ে আসছে।

ডব্লিউএইচও জানিয়েছে, ইউক্রেনের প্রায় ত্রিশ লাখ মানুষ উষ্ণতা এবং সুরক্ষার খোঁজে নিজ নিজ বাসা ছেড়ে যেতে পারে।
কভিড সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়া নিয়েও উদ্বেগ রয়েছে। সূত্র: বিবিসি, রয়টার্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *