ফ্রান্সে আবারও স্কুলছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যা

আন্তর্জাতিক প্রধান সংবাদ

ফ্রান্সের দক্ষিণাঞ্চলে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে এক কিশোরীকে। দেশটিতে মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এ ধরনের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এতে স্তম্ভিত হয়ে পড়েছে ফরাসিরা।

পুলিশ গত শুক্রবার ১৪ বছর বয়সী কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় এক সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তবে খবরটি জানানো হয় মঙ্গলবার গভীর রাতে।

জানা গেছে, দক্ষিণ ফ্রান্সের তোনাশ এলাকায় স্কুল থেকে বের হওয়ার পর ভ্যানেসা নামের ওই স্কুলছাত্রীকে গাড়িতে তুলে নেওয়া হয়। ধর্ষণ ও হত্যার পর তার মরদেহ ফেলে আসা হয় পরিত্যক্ত এক বাড়িতে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিরাপত্তা ক্যামেরার ফুটেজ দেখে শনাক্ত করার পর সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দক্ষিণ ফ্রান্সের অ্যাজাঁরের কৌঁসুলি শনিবার সাংবাদিকদের জানান, পুলিশ মাহমেঁদ শহর থেকে সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তারের সময় তিনি বলেন, ‘আমি জানি আপনারা কেন এখানে এসেছেন। ’ এরপর তিনি অপরাধের কথা স্বীকার করেন।

কয়েক সপ্তাহ আগেই ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে মেলে ১২ বছর বয়সী শিশু লোলার লাশ। তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছিল। ওই ঘটনায় অভিযুক্ত হয়েছেন ২৪ বছর বয়সী এক নারী। তার বিরুদ্ধে খুন, ধর্ষণ এবং নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

লোলার মৃত্যুর ঘটনায় রাজনৈতিক উদ্বেগও সৃষ্টি হয়েছে ফ্রান্সে। কারণ ওই ঘটনায় অভিযুক্ত নারী একজন অবৈধ অভিবাসী। একে কেন্দ্র করে দেশটির বিরোধী দলগুলো অভিবাসন নীতি আরো কঠিন করার আহ্বান জানিয়েছে। সূত্র : রয়টার্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *